খাসফুড এর কেস স্টাডি স্থান পেল ফেসবুকের গ্লোবাল প্ল্যাটফর্মে
Cart
খাসফুড আপডেট

খাসফুড এর কেস স্টাডি স্থান পেল ফেসবুকের গ্লোবাল প্ল্যাটফর্মে

খাসফুড

ফেসবুকের গ্লোবাল প্ল্যাটফর্ম – ফেইসবুক বিজনেস এ শীর্ষ কেস স্টাডি হিসেবে স্থান পেয়েছে বাংলাদেশের অনলাইন ফুড শপ khaasfood.com এবং তাদের ডিজিটাল মার্কেটিং পার্টনার গিকি সোস্যাল এর একটি সফল ক্যাম্পেইন। এটা নিঃসন্দেহে খাসফুড এবং বাংলাদেশের অনলাইন শপ ইন্ডাস্ট্রির জন্য অনেক বড় অর্জন।

ফেসবুকের গ্লোবাল পোর্টাল থেকে পড়ুনঃ Khaas Food Success Story

এই গ্লোবাল প্লাটফর্মে ফেসবুক সাধারণত বিভিন্ন ব্যবসায়িক অর্জনের গল্প প্রকাশ করে থাকে, যেখানে ফেসবুকের বিভিন্ন অ্যাডভান্সড মার্কেটিং টুলস ও টেকনিক এর ব্যবহার এনে দিয়েছে সাফল্য। সাম্প্রতিক সময়ে খাসফুডের সাফল্য তাকে স্থান করে দিয়েছে ফেসবুকের কেস স্টাডিগুলোর মধ্যে শীর্ষ অবস্থানে। খাসফুড অনলাইনে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্যের অর্ডার নেয় এবং হোম ডেলিভারি দিয়ে থাকে।

খাসফুড সম্পর্কে কিছু কথাঃ

খাস ফুড একটি নিরাপদ খাবার সরবরাহকারী ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান। বিশুদ্ধ খাবার সরবরাহ নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে “Pure Food Pure Life” স্লোগানকে সামনে রেখে যার যাত্রা শুরু করে যা ২০১৮ তে এসে “বিশুদ্ধতাই সুস্থতা” তে রূপান্তর হয়। খাসফুডের পদযাত্রার মূল লক্ষ্যই হলো ভোক্তাদের স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস তৈরির পাশাপাশি সেরা অনলাইন শপিং অভিজ্ঞতা প্রদান করা। ভেজালমুক্ত সেরা ও মানসম্মত খাদ্যপণ্য, দ্রুততম ডেলিভারি সেবা এবং সর্বোত্তম অনলাইন শপিং অভিজ্ঞতা প্রদানের মাধ্যমে ভোক্তাদের স্বাস্থ্যকর এবং আনন্দময় জীবন নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে ভোক্তার সর্বোচ্চ সন্তুষ্টি অর্জনই আমাদের উদ্দেশ্য।

বর্তমানে আমরা এমন একটি সংকটপূর্ণ সময়ে উপস্থিত হয়েছি, যখন বিশুদ্ধ ও প্রাকৃতিক খাবারের উৎসগুলো বিলুপ্তির পথে। বাজারে প্রাপ্ত অধিকাংশ খাদ্যপণ্যেই ‘ফুডগ্রেড’ তকমাধারী যেসব কালারিং এজেন্ট ব্যবহৃত হয় তা আসলেই কতটুকু খাবার উপযোগী সেটি সংশয়ের বেড়াজালে আবদ্ধ। তাছাড়া বিভিন্ন খাদ্যপণ্যের দীর্ঘস্থায়িত্ব নিশ্চিত করতে যেসব উপাদান ব্যবহার করা হয় বা প্রক্রিয়াজাতকরণে যেসব পদ্ধতি অবলম্বন করা হয় তা এসব খাদ্যের দীর্ঘস্থায়িত্ব নিশ্চিত করে ঠিকই কিন্তু এতে ঘাটতি দেখা দেয় গুণগতমানের।

“খাসফুড” খাদ্যের গুণগত মান রক্ষার্থে এবং ভোক্তাদের বিশুদ্ধ খাদ্যপণ্য সরবরাহে আপোষহীন। যার প্রমাণ আমাদের ধীরে ধীরে বেড়ে উঠা এবং ভোক্তামহলে “খাসফুড” এর পণ্যের চাহিদার উর্ধ্বগামিতা। আমাদের বিশ্বাস আমরা শীঘ্রই বিশুদ্ধ ও প্রাকৃতিক খাদ্য সরবরাহে এক নতুন দিগন্তের সূচনা করতে পারব ইনশাআল্লাহ।